বাংলা সাহিত্যের অন্যতম প্রধান কবি-জীবনানন্দ দাশ এর আজ জন্মদিন।

658658_b_6231

আজ আধুনিক বাংলা সাহিত্যের অন্যতম প্রধান কবি জীবনানন্দ দাশ এর আজ  জন্মদিন। ১৮৯৯ সালে ১৭ই ফেব্রিয়ারি তিনি বরিশালে( বাংলাদেশ) জন্মগ্রহণ করেন।

জীবনানন্দ দাশ ১৯১৫ সালে জীবনানন্দ ব্রজমোহন বিদ্যালয় থেকে ম্যাট্রিকুলেশন পাস করেন। ১৯১৯ সালে তিনি প্রেসিডেন্সি কলেজ থেকে ইংরেজিতে অনার্সসহ বিএ ডিগ্রি লাভ করেন। ১৯২১ সালে কোলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে দ্বিতীয় বিভাগে মাস্টার্স সম্পন্ন করেন। ১৯২২ সালে তিনি কোলকাতা সিটি কলেজে অধ্যাপনা শুরু করেন। ১৯২৭ সালে জীবনানন্দ দাশের প্রথম কাব্যগ্রন্থ ‘ঝরাপালক’ প্রকাশিত হয়। এটি প্রকাশ হওয়ার পরই তিনি সিটি কলেজের চাকরি হারান। ১৯২৯ সালে দিল্লির রামযশ কলেজে অধ্যাপক হিসেবে যোগ দেন।

১৯৪৭ সালে দেশ বিভাগের কিছু আগে তিনি পাকাপাকিভাবে সপরিবারে কোলকাতায় চলে আসেন। তিরিশের কাব্যধারার অন্যতম কবি জীবনানন্দের কাব্যে পাশ্চাত্যের মডার্নিজম ও প্রথম বিশ্বযুদ্ধ-পরবর্তী বঙ্গীয় সমাজের বিদগ্ধ মধ্যবিত্তের মনন ও চৈতন্যের সমন্বয় ঘটেছে। তার বিখ্যাত কাব্যগ্রন্থগুলোর মধ্যে রয়েছে রূপসী বাংলা (১৯৩৪), ধূসর পাণ্ডুলিপি (১৯৩৬), বনলতা সেন (১৯৪২), মহাপৃথিবী (১৯৪৪), সাতটি তারার তিমির (১৯৪৮), বেলা অবেলা কালবেলা (১৯৬১)। এছাড়া বহু অগ্রন্থিত কবিতাও রয়েছে তার। শুধু কবি নয়, ঔপন্যাসিক ও গল্পকার হিসেবেও তিনি স্বাতন্ত্র্যের ছাপ রেখেছেন।

তার মৃত্যুর পর প্রাপ্ত অসংখ্য পাণ্ডুলিপিতে উপন্যাসের মধ্যে রয়েছে মাল্যবান, সুতীর্থ, জলপাইহাটি, জীবনপ্রণালী, বাসমতীর উপাখ্যান ইত্যাদি। তার রচিত গল্পের সংখ্যা দুই শতাধিক। ‘কবিতার কথা’ নামে তার একটি প্রবন্ধগ্রন্থ আছে। জীবনানন্দ দাশের ‘বনলতা সেন’ কাব্যগ্রন্থ নিখিলবঙ্গ রবীন্দ্রসাহিত্য সম্মেলনে পুরস্কৃত (১৯৫৩) হয়। এছাড়া ‘জীবনানন্দ দাশের শ্রেষ্ঠ কবিতা’ গ্রন্থটিও ভারত সরকারের সাহিত্য একাডেমি পুরস্কার (১৯৫৪) লাভ করে। ১৯৫৪ সালের ২২ অক্টোবর কোলকাতায় তিনি মৃত্যুবরণ করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *