আজ আমরা ভারতের এক অতি প্রাচীন ধ্যানমুদ্রা “বিপাসনা” নিয়ে আলোচনা করব

ad1100f2-1544-437f-a7f4-ff10a4513da6আজ আমরা ভারতের এক অতি প্রাচীন ধ্যানমুদ্রা “বিপাসনা” নিয়ে আলোচনা করব।আজ থেকে ২৫০০ বছর আগে ভগবান গৌতম বুদ্ধ এই মুদ্রাটিকে পুনরাবিষ্কার করেছিলেন এবং স্বয়ং অনুশীলন করে বাকি সিস্যদের তালিম দিয়ে পারদর্শী করেছিলেন।ভগবান তথাগতের জীবনকালে উত্তর ভারতের অসংখ্য মানুষ “বিপাসনা” অনুশীলন করে তাদের মানসিক জ্বালা যন্ত্রণা থেকে মুক্তির সন্ধান পায়,শুধু তাই না, জীবন যাপনের সর্বস্তরে পরম সুখানুভুতির তৃপ্তি লাভ করে বলে জানা যায়।এই যোগমুদ্রার উপকারিতা এতই ফলদায়ক, ধীরে ধীরে ভারতের বাইরেও বিস্তার করতে থাকে কিন্তু বুদ্ধের মহানির্বাণের পর “বিপাসনা” ভারত থেকে লুপ্ত হলেও আজও মায়নামার(বারমা), শ্রীলঙ্কা, থাইল্যান্ড, জাপান, চীন প্রভিতি দেসে আজও প্রচলন আছে। ইউরোপ ও অ্যামেরিকাতেও প্রসার লাভ করেছে।অতি প্রাচীন যোগমুদ্রাটি চিরতরে হারিয়ে যাওয়ার সমূহ সম্ভাবনা ছিল কিন্তু যেহেতু এই বিদ্যাটি সম্পূর্ণ গুরুমুখী,মায়নামারের বিশেষ একটি সম্প্রদায় প্রজন্মের পর প্রজন্ম ধরে বাঁচিয়ে রাখার ফলে সুপ্রাচীন যোগমুদ্রাটি ভারত থেকে হারালেও পৃথিবীর অন্য প্রান্তে বেঁছে আছে এবং মানুষ “বিপাসনা” অভ্যাস করে সুফল লাভ করছে।
আজকের আধুনিক জীবনে জগত জুড়ে মানুষকে গ্রাস করছে অসহিস্নুতা, ব্যাবহারে রুড়তা, যা হতাশা থেকে আসছে আর এর ফলে সমাজ জীবনে তৈরি হচ্ছে ছন্দহীনতা।এই পরিবেশে “বিপাসনা” ধ্যান অভ্যাস কার্যকরী ভূমিকা পালন করবে। সামাজ বিজ্ঞানীরা “বিপাসনা” ধ্যান করাতে পরামর্শ দিচ্ছেন আটক করা উগ্রপন্থীদের, সুরক্ষা সংস্থাগুলি পরামর্শ অনুসরণ করে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছে। আরও বলা হচ্ছে, যারাই ঝুকির ও উৎকণ্ঠা পূর্ণ কাজ করেন তাদের জন্য “বিপাসনা” খুবই উপযোগী।
এখন আমরা জানব কি পদ্ধতিতে “বিপাসনা” ধ্যান অনুশীলন করতে হয়? মুলত তিনটি পদক্ষেপে ১০ দিনে অনুশীলনটি অভ্যাস করতে হয়। প্রথম স্তরে সবরকম নেশা ও বাজে প্রবৃত্তি থেকে বিরত করা হয়। দ্বিতীয় স্তরে সাড়ে তিন দিনে “আনাপনা” শ্বাস ও প্রশ্বাসের ওপর নিয়ন্ত্রণ শিখতে হয়। শেষ সাড়ে ছয় দিন পুরোপুরি “বিপাসনা” যোগমুদ্রা শিখতে হয় যা একজনকে সম্পূর্ণ শারীরিক ও মানসিক বিকাশ প্রদান করে।
কোথা থেকে শিখবেন? সারা পৃথিবী জুড়ে ৮০০ জনেরও বেশী প্রশিক্ষক মানুষকে স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনতে “বিপাসনা” যোগমুদ্রার শিক্ষা প্রদান করছে । পৃথিবীর সব প্রান্তে এবং ভারতের সব শহরেই “বিপাসনা” প্রশিক্ষণ কেন্দ্র তৈরি হয়েছে, খোঁজ নিলেই উৎসাহী মানুষরা সন্ধান পাবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *