ইউরিনারি ইনকনটিনেনসি রোগটা কি? সমাধান কিভাবে?

1447257555-ukb-602611000-bladder-worksv2হাঁচি, কাশি, ওজননিয়ে ব্যায়াম, দৌড়নো বা ভারী জিনিষ তোলার সময় ইউরিনারি ব্লাডারে চাপ পড়ে। অনেকের এই সময় ইউরিন বেরিয়ে পড়ে। একে বলে স্ট্রেস ইউরিনারি ইনকনটিনেনসি।এই সমস্যা ছেলেদের থেকে মেয়েদের বেশি হয়। আমাদের দেশে প্রতি তিনজন মেয়ের মধ্যে একজন এই সমস্যায় ভুগছে।

বেশি বয়স, গর্ভাবস্থা, হটাৎ ওজন কমে যাওয়া, মনোপজ, নিম্নাঙ্গের কোন নার্ভ ক্ষতিগ্রস্থ হওয়া, ক্রনিক কাশি ইত্যাদি এই রোগের ঝুঁকি বাড়ায়। পেলভিক ফ্লোর মাশল ও ইউরিনারি স্ফিঞ্চটার ব্লাডারকে ধরে রাখে এবং ইউরিন বেরনো নিয়ন্ত্রন করে। এগুলি দুর্বল হয়ে পড়লে ইউরিনারি ইনকনটিনেনসি হয়।

ইউরিনারি ইনকনটিনেনসির চিকিৎসা এতদিন করা হতো শুধুমাত্র ওষুধ প্রয়োগে কিন্তু সমস্যা হোল ওষুধ বন্ধ করলেই রোগটি আবার দেখা দেয়।মানে জীবনভর ওষুধ।চিকিৎসা বিজ্ঞান থেমে নেই সমস্যার সমাধানে এগিয়ে এসেছে সার্জারি। ফ্রাকসনেটেড কার্বনডাই অক্সাইড লেজার থেরাপি। ব্লাডারের চারপাশের ও ইউরেথার কোলাজেন টিস্যুগুলোকে পুনরুজ্জীবিত করে সমস্যার সমাধান করা হচ্ছে। এই করতে সময় লাগে মাত্র ২-৩ মিনিট। ২-৩ সিটিং এ কাজ হয়ে যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *