মমতার সম্ভাব্য মন্ত্রিসভা প্রকাশ করল–‘একাবিংশ’

BL22_NEWMINISTERS_1275499f

মমতা ব্যানারজী ও ‘ দাগ আচ্ছে হ্যায়’—সুদেশ্না সিনহা

 

বঙ্গের জনতা- জনার্দনের বিপুল সমর্থন নিয়ে দ্বিতীয় বারের জন্য রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর পদে বসতে চলেছেন মমতা ব্যানারজী।গুটি গুটি পায়ে এগিয়ে আসছে শপথের মহেন্দ্রক্ষণ।কিন্তু গত কয়েকদিন ধরে জল্পনা চলছে,মমতা মন্ত্রীসভায় কাদের ভাগ্যে শিকে ছিঁড়বে আর কাদের ঘাড়ে নেমে আসবে মমতা- খড়গ।

hqdefault

বিগত মন্ত্রীসভায় রাজ্যের তিন প্রভাবশালী মন্ত্রী মদন মিত্র,সুব্রত মুখোপাধ্যায় ও ফিরহাদ হাকিমের গায়ে লেগেছিল দুর্নীতির দাগ। সারদা ও নারদা কাণ্ডে তিনজনের ঘুষ নেওয়ার তথ্য ও ছবি প্রকাশ্যে এসেছিল।যদিও তিন মন্ত্রীর গায়ে লাগা দুর্নীতি-কাদা মুছতে চেষ্টার কসুর করেনি শাসক দলের নেতা মন্ত্রীরা।যদিও শেষ রক্ষা হয়নি মদনের ক্ষেত্রে।কামারহাটির রাজনৈতিক সচেতন মানুষ প্রত্যাখ্যান করেছেন দুর্নীতির পাণ্ডাকে।তবে সুব্রত মুখোপাধ্যায়, ফিরহাদ হাকিমরা ফের জিতে এসেছেন।শুধু এই দুজনই নয়, নারদাকাণ্ডে প্রকাশ্যে ঘুষ নেওয়ায় আভিজুক্ত ইকবাল আহমেদ ও শুভেন্দু অধিকারীরাও বিপুল বিক্রমে জিতে এসেছেন।আর তারপর থেকেই শুরু হয়েছে গুঞ্জন নারদায় অভিযুক্তদের কি ফের মন্ত্রিসভায় স্থান দেবেন তৃণমূলের সর্বময় নেত্রী?

image

রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, বাংলার আমজনতার দরবারে দলের স্বচ্ছ ভাবমূর্তি নিয়ে একটা জোরাল বার্তা দেওয়ার সময় এসেছে তৃণমূল সুপ্রিমোর কাছে। আর তা করতে গেলে প্রথমেই তাকে মন্ত্রিসভা থেকে ছেঁটে ফেলতে হবে।কেননা নারদাকাণ্ড নিয়ে বিড়ম্বনার চূড়ান্তসীমায় পৌঁছানর পরেই মমতা ব্যানারজী প্রকাশ্য জনসভায় দাড়িয়ে বলেছিলেন, আগে জানলে নির্বাচনে দলের টিকিট দিতেন না।রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা বলছেন ভোটের আগে যে রাজনৈতিক বাধ্যবাধকতা ছিল, দলকে অটুট রাখার প্রয়োজনীয়তা ছিল, এখন তা আর নেই। বরং এখন দলকে দুর্নীতিমুক্ত,দাগিমুক্ত করার সুবর্ণ সুযোগ এসেছে মমতার কাছে। কিন্তু বিলিয়ন ডলারের প্রস্ন হল,সেই সৎসাহস কি দেখাতে পারবেন বাংলার অধীস্বরি।

IndiaTv148ee6_Saradha-scam-CB20323

তৃণমূল সুত্রের খবর নয়া মন্ত্রিসভার সম্ভাব্য তালিকা তৈরি করে ফেলেছেন মমতা ব্যানারজী। সেই সম্ভাব্য তালিকায় একবার চোখ বোলানো যাক।

 

১) মমতা বানেরজীঃ– মুখ্যমন্ত্রী,স্বরাস্ট্র্,স্বাস্থ্য, ভুমি ভুমিসংস্কার

২) পার্থ চ্যাটার্জিঃ– শিল্প,বানিজ্য বিদ্যুৎ

৩) অমিত মিত্রঃ– অর্থ, আবগারি বস্ত্র

৪) শুভেন্দু অধিকারিঃ– গ্রামোন্নয়ন পঞ্চায়েত

৫) ব্রাত্য বসুঃ– তথ্য সংস্কৃতি

৬) জাবেদ খানঃ– পুর নগরোন্নয়ন

৭) উদয়ন গুহঃ– উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন

8) পূর্ণেন্দু বসুঃ —দুর্যোগ মোকাবিলা দমকল

৯) অরুপ রায়ঃ– কৃষি বিপনন

১০) জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকঃ– শ্রম

১১) শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়ঃ– আইন বিচার

১২) সুদর্শন ঘোষদস্তিদারঃ– স্কুল শিক্ষা

১৩) নির্মল মাঝিঃ —উচ্চ শিক্ষা

১৪) স্বর্ণ কমল সাহাঃ– পূর্ত

১৫) সাধন পাণ্ডেঃ– জনস্বাস্থ্য কারিগরি

১৬) মলয় ঘটকঃ– খাদ্য গনসরবরাহ

১৭) হায়দার আজিজ সফিঃ– সমবায়

১৮) মালা সাহাঃ– স্বনির্ভর স্বনির্ভর কর্মসংস্থান

১৯) স্মিতা বক্সিঃ– নারী শিশুকল্যান

২০) চন্দ্রনাথ সিনহাঃ– পর্যটন

২১) বিনয় বর্মণঃ– বন

২২) সুদিপ্ত রায়ঃ– পরিবেশ

২৩) শশী পাঁজাঃ– জনশিক্ষা গ্রন্থাগার

২৪) সৌমেন মহাপাত্রঃ– পশ্চিমাঞ্চল উন্নয়ন

২৫) সুকুমার হাসদাঃ– অনগ্রসর কল্যান

২৬) সিদ্দিকুল্লা চৌধুরিঃ– মাদ্রাসা শিক্ষা সংখ্যালঘু বিষয়ক

২৭) উজ্জল বিশ্বাসঃ– কারিগরি শিক্ষা

২৮) ফিরহাদ হাকিমঃ– দপ্তর ঠিক হয়নি

২৯) গৌতম দেবঃ– পার্বত্য বিষয়ক

৩০) অরুপ বিশ্বাসঃ– দপ্তর ঠিক হয়নি

৩১) বৈশালী ডালমিয়াঃ– ক্রীড়া যুবকল্যান

৩২) অভিজিত রায়ঃ– প্রাণী সম্পদ

৩৩) সুব্রত মুখোপাধ্যায়ঃ– জলসম্পদ উন্নয়ন

hqdefault (1)

*** ওপরের তালিকা একরকম চূড়ান্ত। তবে মমতার মতো আনপ্রেডিক্টটেবল নেত্রী শেষ মুহূর্তে কি করবেন তা তিনি ছাড়া আর কেউ জানেন না। তবে আপাতত তালিকায় নজর করলে স্পষ্ট প্রতীয়মান, সুব্রত ও ফিরহাদের ক্ষমতা খর্ব করার প্রাথমিক সিদ্ধান্ত নিলেও মন্ত্রিসভা থেকে বাদ দেওয়ার সৎসাহস দেখাতে পারছেন কিনা সেটাই দেখার। বরং শুভেন্দু অধিকারীর মতো  নারদা-সারদা কাণ্ডে অভিযুক্তকে  গ্রামোন্নয়ন ও পঞ্চায়েত দপ্তরের মন্ত্রী করার কথা ভেবে ফেলেছেন। তৃণমূল সুপ্রিমোর এই আচরণ দেখে দূরদর্শনের একটি বিজ্ঞাপন চোখের সামনে ভাসছে, বিজ্ঞাপনে কাপড়ে দাগ লাগাকে বিষয়বস্তু করে দেখানো হয়েছে। বলা হচ্ছে ‘দাগ আচ্ছে হ্যায়’।তৃণমূল সুপ্রিমো হয়তোবা ওই বিজ্ঞাপন দেখে প্রভাবিত হয়েছেন। তাই সুব্রত- সুভেন্দু-ফিরহাদ দের মতো দাগিদের নিয়ে মন্ত্রিসভা গঠন করলেও করে ফেলতে পারেন। পড়ে বলবেন—‘দাগ তো আচ্ছে হ্যায়’

সত্যি রাজনীতিতে দাগের মহিমা অপরিসীম’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *