প্রশাসনিক প্রহসন, অনিন্দ্য রায়চৌধুরী

51441834_500369987159201_3174194274438742016_n১) সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে সারদার সহ বিভিন্ন পঞ্জি স্কিমে তদন্ত চলছে এখানে সিবিআই এবং কলকাতা পুলিশ বা মুখ্যমন্ত্রীর নিজস্ব কোন মতামতের কোন গুরুত্ব নেই।

২) তদন্তের স্বার্থে ইনভেস্টিগেটিং এজেন্সি যদি মনে করে কাউকে জিজ্ঞাসাবাদ করার প্রয়োজন আছে তাহলে আইন অনুযায়ী তারা সেটা করতে পারে এখানে মহামান্য আদালত অন্তরায় হতে পারে না।

৩) যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামোতে একটি রাজ্য সরকারের তদন্তকারী সংস্থাকে কোন অবস্থাতেই একটি কেন্দ্রীয় সরকারের সংস্থা আটকাতে পারে না।

৩) তর্কের খাতিরে যদি ধরে নেয়া যায় রাজীব কুমার নির্দোষ তাহলে সিবিআইকে ফেস করতে ভয় কিসের ? মমতা ব্যানার্জির ও রাজীব কুমারের আইনের উপর ভরসা নেই তাই প্রশাসনিক ক্ষমতা কে অপপ্রয়োগ করে সংবিধানকে কলুষিত করার চেষ্টা করছেন ।

৪) সিবিআই ৫ বছর পর তদন্তের গতি বাড়াচ্ছে। সুদীর্ঘ পাঁচ বছর ধরে সিবিআই অফিসাররা কোথায় ছিলেন? টিএমসি আর বিজেপির মেকি লড়াইকে প্রতিস্থাপিত করতে এই চিত্রনাট্য রচিত হল।

৫) পশ্চিমবঙ্গের সাধারণ মানুষ মনে করে রাজীব কুমার যতটা না বেশি তার কর্তব্যের প্রতি দায়িত্বশীল তার থেকেও বেশি উনি তৃণমূল নেত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞতা বসে আবদ্ধ। স্বাভাবিক কারণেই সংসদীয় রীতি এবং নীতি ভুলে রাজীব কুমারের সঙ্গে একান্ত বৈঠকে মিলিত হল।

৬)রাজীব কুমারের স্পর্ধা এতটাই বেশি যে নির্বাচন কমিশন তাকে সমন দিয়ে ডাকলেও তিনি তা উপেক্ষা করতে পারেন একমাত্র সততার প্রতীকের অনুপ্রেরণাতে।

৭) প্রশাসনিক তর্ক বিতর্কে না গিয়ে সংবিধান ও গণতন্ত্রকে সুরক্ষিত করতে হবে। বিজেপি এবং টিএমসি সংবিধানের অনুশাসন মানে না এটা খুবই লজ্জার।

৮) ধরনায় বসে মমতা ব্যানার্জি কি প্রমাণ করতে চাইছেন ? সততার প্রতীক চোরকে বাঁচাতে ধরনায় বসেছেন কিন্তু রাফায়েল, উন্নয়ন ও দুর্নীতির প্রতিবাদে মমতা ব্যানার্জিকে কোন আন্দোলন করতে দেখিনি। দিল্লিতে দোস্তি এবং বাংলাতে কুস্তি নাটক ।

৯) সিবিআই এর জানা উচিত ছিল রাজীব কুমারের বাড়িতে প্রবেশ করলে বাধা আসবে তা সত্ত্বেও কেন শুধুমাত্র রঙ্গমঞ্চের মেকি লড়াই এর নাটক মঞ্চস্থ হল ?

১০) রাজীব কুমার এবং সুরজিৎ কর পুরকায়স্থ কেন ধর্নাতে বসলেন তার কোন সদুত্তর নেই। প্রশাসনিক পদে থেকে ধর্নায় বসে কি বার্তা দিতে চাইছেন ?

অনিন্দ্য রায়চৌধুরী

অনিন্দ্য রায়চৌধুরী

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *