‘প্রথম বাঙালি রাষ্ট্রপতি শপথ নিয়েছিলেন’

11b4886e76b3d5a2152facf835a11a37-5971919491345২০১২ সালের ২৫ জুলাই ভারতের ১৩তম রাষ্ট্রপতি পদে শপথ নিয়েছিলেন প্রণব মুখার্জি। ২০১৭ সাল পর্যন্ত ভারতের সংবিধানিক প্রধান হিসেবে রাইসিনা হিলসে কাটিয়েছেন একমাত্র বাঙালি রাষ্ট্রপতি।

উজ্জ্বল রাজনৈতিক কর্মময় জীবন। কংগ্রেস দলের নীতিনির্ধারনের দায়িত্ব থেকে শুরু করে, পররাষ্ট্রমন্ত্রী, অর্থমন্ত্রী, প্রতিরক্ষামন্ত্রীর মতো গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয় সাফল্যের সঙ্গে সামলেছেন।

২০১২ সালে কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন ইউপিএ জোট প্রনব মুখার্জিকে রাষ্ট্রপতি পদে প্রার্থী করে। এনডিএ মনোনীত প্রার্থী পূর্ণ অ্যাজিটটক সাংমাকে হারিয়ে রাষ্ট্রপতি হন প্রণব মুখার্জি।

২০১২ থেকে ২০১৪ পর্যন্ত কেন্দ্রে ক্ষমতায় ছিল কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন ইউপিএ সরকার। আজীবন জাতীয় কংগ্রেসের সদস্য থাকলেও রাষ্ট্রপতি হিসেবে নিরপেক্ষভাবেই  প্রতিটি রাজনৈতিক দলের সঙ্গে অত্যন্ত ভালো সম্পর্ক বজায় রেখেছিলেন। ২০১৪ সালের মে মাসে কেন্দ্রে বিজেপি ক্ষমতায় আসার পরও সেই সম্পর্কে চিড় ধরেনি। এনডিএ সরকারের সঙ্গেও সম্পূর্ণ সহযোগিতা করে গেছেন ভারতীয় রাজনীতির ‘চাণক্য’।

সাংবিধানিক প্রধান ও প্রশাসনিক প্রধানের মধ্যে যে মতের অমিল হয়নি তা নয়। বিভিন্ন বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও তার মধ্যে মতের অমিল থাকলেও সেটা তাদের নিজেদের মধ্যেই রেখেছিলেন, বাইরে প্রকাশ করতে দেননি। আর সেই কারণেই একে অপরের প্রতি পারস্পরিক শ্রদ্ধা বজায় ছিল।

দেশজুড়ে অসহিষ্ণুতার পরিবেশ সৃষ্টি হওয়ার পর তিনি বিভিন্ন সময়ে জাতীয় ঐক্য ও একতা বজায় রাখার আবেদন জানিয়েছেন। রাষ্ট্রপতি হিসেবে নিজের সময়কালে তিনটি জিনিসকে সব সময় প্রাধান্য দিয়েছেন। সংবিধানিক নীতি মেনে চলা, ভারতের ধর্মীয় স্বাধীনতা ও বৈচিত্র্যের গুরুত্ব এবং গণমাধ্যমের মুক্ত স্বাধীনতা। গুরুত্বের অনুধাবন করা।

প্রণব মুখার্জি নিজেকে প্রমাণ করে দিয়েছিলেন যে তিনি কখনোই ‘রাবার স্ট্যাম্প রাষ্ট্রপতি’ ছিলেন না।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *