চাকরির কি দরকার!!! … দেবাদিত্য দেবাংশী।

shafiqul-ameen-tea-stallশোন, শোন মন দিয়ে। মহারানীর বিশেষ মন্ত্রীর বিশেষ আদেশ অনুসারে রাজ্যের সব স্কুলের জন্য শিক্ষক নিয়োগ হবে। বয়স হতে হবে ৬৪ বছরের উপর এবং সরকারী স্কুলে শিক্ষকতার অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। তোরা কি মনদিয়ে শুনছিস আমার কথা?

কথাগুলোচায়ের দোকানে বসে শুনছিল-দিপ্ত,অরিন আর রাকেশ আর নিজেদের মধ্যে আলোচনা করছিল।কি লাভ হল ‘বিএড-ডিএড’ করে, জীবনটা কি এই ভাবেই চলবে মহারানীর রাজ্যে… আমাদের মতো বেকারদের জীবনে কি কোন কিছুই হবে না!!!… এই সব কথার মাঝে কখন যে স্থানীয় মহারানীর পেয়াদা এসে দাঁড়িয়েছে কেউ খেয়াল করে নি।

পেয়াদা তিনজনকেই চা খাওয়ার আহ্বান জানাল। সকলকে টেবিলে বসিয়েপ্রত্যেকের জন্য চায়ের ফরমায়েশ করে মহারানীর রাজত্বে সার্বিক পরিস্তিতি আর উন্নয়নের কথা বোঝাতে শুরু করল। ২ টাকা কিলো চাল দিচ্ছি- খাওয়ার আর চিন্তা নেই… ১৫০০ টাকা যুবশ্রী ভাতা দিচ্ছি প্রতিদিনের জন্য ৫০ টাকা, সকালবেলা উঠবি, চায়ের দোকানে আসবি, দুকাপ চা খাবি-আড্ডা দিবি, খরচ হবে ১০ টাকা হাতে থাকবে ৪০ টাকা… এরপর মোবাইলের দোকানে ১০ টাকা রিচার্জ করে প্রেমিকার সঙ্গে কথা বলবি। প্রেমিকা যদি স্কুল ছাত্রী হয় তাহলে তো চিন্তাই নেই সে সাইকেলে করে আসবে তোর সঙ্গে দেখা করতে। যদি কলেজে পরে সেক্ষেত্রে ১০ টাকা বাস ভাড়া দিয়ে যাবি দেখা করতে- তাও ৩০ টাকা হাতে থাকবে। ১০ টাকা দিয়ে এক বাণ্ডিল বিড়ি কিনবি হাতে থাকবে ২০ টাকা। এর পর যেদিন তোর প্রেমিকা একজন বেকারকে বিয়ে করতে অক্ষমতা কথা  জানিয়ে অন্য কাউকে বিয়ে করে চলে যাবেসেদিন তুই হাতের সঞ্চিত ২০ টাকায় বাংলা বা চুল্লু খেয়ে বিরহের কবিতা লিখবি!!এই কবিতায় রানীর দেশের সংস্কৃতি ও সাহিত্য ভাণ্ডার উপচে উঠবে। একদিন চুল্লু( বিষ মদ) তুই মরে যাবি… চাকরির আর কি দরকার!!! অবশ্য এতে তোর পরিবারের লাভ আছে, বিষমদ খেয়ে মরার কারণে তোর পরিবার ক্ষতিপূরণ পাবে।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *