আরামবাগের গান্ধী- প্রফুল্ল সেন।

imageপশ্চিমবঙ্গের তৃতীয় মুখ্যমন্ত্রী প্রফুল্লচন্দ্র সেন ১৮৯৭ সালে ১০ই এপ্রিল জন্মগ্রহন করেন।  ছাত্রাবস্থায় মহাত্মা গান্ধীর আদর্শে উদ্বুদ্ধ হয়ে যোগ দিয়েছিলেন অসহযোগ আন্দোলনে। তারপর থেকেই সমাজ সেবার উদ্দেশ্য নিয়ে গান্ধীজীর আদর্শে কাজ শুরু করেন হুগলীজেলার সবচাইতে পিছিয়ে পড়া অখ্যাত আরামবাগে। তাঁর নিঃস্বার্থ কর্মকাণ্ডের জন্য এই বর্ষীয়ান কংগ্রেস নেতা পরবর্তীকালে বিখ্যাত হন ‘আরামবাগের গান্ধী’ হিসেবে। আজকের দিনেই তাঁর জন্ম৷

প্রফুল্লচন্দ্র সেন ১৮৯৭ সালের ১০ই এপ্রিল অবিভক্ত বঙ্গের খুলনা জেলার সেনহাটিতে জন্মগ্রহণ করে। দেওঘরের আর.মিত্র. ইন্সটিটিউট থেকে সাফল্যের সঙ্গে মাট্রিক পাশ করে কলকাতায় আসেন এবং স্কটিশ চার্চ কলেজে বিজ্ঞান বিভাগে ভর্তি হন। এরপর তিনি যখন বিলেতে যাওয়ার জন্য তৈরি হতে থাকেন৷ আবার সেইসময় ১৯২০সালে কলকাতায় কংগ্রেসের অধিবেশনে মহাত্মা গান্ধী ভাষণ শুণে অনুপ্রাণিত হয়ে অসহযোগ আন্দোলনে যোগ দেন। সমাজসেবার কাজ শুরু করেন  হুগলী জেলার এক প্রত্যন্ত গ্রাম আরামবাগে।স্বাধীনতা আন্দোলনের জন্য ১৯৩০-১৯৪২ সালের মধ্যে বহুবার কারাবরণ করেন। এমনকি তিনি তাঁর শ্রীরামপুরের বাড়িটি কংগ্রেসের কার্যালয় হিসাবে ব্যবহারের জন্য অনুমতি দেন। আজীবন অকৃতদার এই মানুষটি খুবই সাধারণ জীবন যাপন করতেন। স্বাধীনতা পূর্ববর্তী সময়ে ১৯৪৪এর নির্বাচনে তিনি আরামবাগ অঞ্চল থেকে জয়যুক্ত হন এবং বিরোধী দলের প্রতিনিধি হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন।

স্বাধীনতার পর ১৯৪৮সালে ডঃবিধানচন্দ্র রায়ের মন্ত্রীসভার খাদ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব পান৷ এই রাজ্যে রেশনিং ব্যবস্থা তাঁর হাত ধরেই শুরু হয়েছিল ৷ পরবর্তীকালে ডঃবিধানচন্দ্র রায়ের মৃত্যুর পর ১৯৬২সালে তিনিই হন পশ্চিমবঙ্গের তৃতীয় মুখ্যমন্ত্রী। যদিও ১৯৬৭ সালের নির্বাচনে আরামবাগ থেকে কংগ্রেস প্রার্থী হয়ে ভোটে লড়তে গিয়ে আর এক গান্ধীবাদী নেতা বাংলা কংগ্রেসের প্রার্থী অজয় মুখোপাধ্যায়ের কাছে মাত্র ৮২০ ভোটে পরাজিত হয়৷

মুখ্যমন্ত্রী থাকা কালে বিরোধীরা অনেক কুৎসা রটাতেন ওনার নামে। কলকাতার স্টিফেন হাউসের মালিক প্রফুল্ল সেন। অথচ মৃত্যুর আগের দিন তাকে অবধি চরম দারিদ্রতার মধ্যে কাটাতে হয়েছে।কিছু মানুষের সহযোগিতা না থাকলে হয়তো না খেয়ে থাকতে হতো। খাদ্য সঙ্কটের সময় শ্রী সেন জনপ্রিয়তা হারান। পুষ্টিকর খাদ্য কাঁচা কলা খেতে বলেছিলেন বঙ্গবাসীকে। তা নিয়ে প্রচুর কটাক্ষ হজম করতে হয়েছে। তাই যেদিন নির্বাচনে হেরে যায় সেদিন বাজারে কাঁচা কলার আকাল লেগেছিল। ১৯৯০ সালে ২৫সে সেপ্টেম্বর মৃত্যুবরন করেন।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *