আমাদের হেঁসেলে..আজকের রান্না..’কাতলা মুড়োর কষা’।

IMG_5145জামাই আর মাছের মুড়োর সম্পর্ক বিয়ের দিন থেকে। বিয়ের আনুস্থান শেষ,এবার মেয়ে জামাই জোড়ে খেতে বসবে। বিয়ে বাড়ির একজন বয়স্ক জামাইয়ের পাতে তুলে দিলেন পেল্লাই মাপের মাছের মুড়ো। রুই বা কাতলার মুড়ো বিশেষ অতিথির পাতে তুলে দেওয়ার চলন আছে। সামনেই জামাইষষ্ঠী আসছে জামাই বাবাজীর পাতে তুলে দিন কাতলা মুড়োর কষা। হলফ করে বলছি বেশী ভাত খাবেই খাবে।

মাছের মাথা কাটাবার সময় দেখে নেবেন যেন মাছের কিছু অংশ মুড়োর সঙ্গে লেগে থাকে। শুধু কাটকাট মুড়ো কষা ভালো হয় না। কানকো ফেলে দেবেন। ভালো করে পরিস্কার করবেন ,খেয়াল রাখবেন মুড়োর ভেতর রক্ত রক্ত না থাকে।

IMG_20160330_233317

উপকরনঃ

কাতলা মাছের মুড়োঃ ৮০০ গ্রাম (যত বড় হবে ভালো)

আলুঃ একটা মাঝারি মাপের লম্বা কোরে কাটা

পেঁয়াজ কুঁচিঃ মাঝারি মাপের ২বা ৩টে

– আদা বাটাঃ এক টেবিল চামচ

– রসুন বাটাঃ এক টেবিল চামচ

– জিরে বাটাঃ এক চা চামচ

– গুঁড়ো লঙ্কাঃ হাফ চা চামচ (ঝাল বুঝে)

হলুদ গুঁড়োঃ হাফ চা চামচ

– কাঁচা লঙ্কাঃ কয়েকটা

– পাকা টমেটোঃ একটা চার ফালি

– নুনঃ পরিমান মত

– তেলঃ ৭/৮ টেবিল চামচ

– জলঃ হাফ কাপ

– ধনে পাতার কুচিঃ ৩/৪ টেবিল চামচ

রান্নার প্রনালিঃ

**সবার প্রথমে আলু ও মাছের মুড়ো নুন ও হলুদ মাখিয়ে মাঝারি করে ভেজে তুলে রাখুন

১, কড়াইতে তেল গরম করে পেঁয়াজ কুচি ও লঙ্কা ভাঁজুন।ভাজার সময় হাফ চা চামচ নুন দেবেন!

২, পেঁয়াজের রঙ হলদে হতে দিন।

৩, এবার আদা ও রসুন দিন আর ভাজুন।

৪, টমেটো দিন।

৫, মরিচ গুঁড়ো, হলুদ গুঁড়ো, জিরা গুঁড়ো দিন, ভাজুন কয়েক মিনিট।

৬, এবার হাফ কাপ জল দিয়ে দিন।

৭, এবার মাছের মুড়ো দিয়ে দিন।

৮, চামচ বা হাতায় করে ঝোল তুলে মাছের উপরে দিতে থাকুন। মুড়ো ভাঙ্গলে চলবে না।

৯,মাঝারি আঁচ থাকবে!

১০, কিছু সময়ের জন্য ঢেকে দিন।

১১, মাছ বেশি নাড়াবেন না, ভেঙ্গে যাবে, চামচ বা হাতা দিয়ে বার বার ঝোল তুলে মাছের উপরে দিন।

১২, , রঙ দেখেই বুঝতে পারবেন, হয়ে গেছে কি না।

১৩, ধনে পাতার কুচি রান্নার ওপর ছড়িয়ে দিন।

১৪, গ্যাস বন্ধ করে কয়েক মিনিট ঢেকে রাখুন। ব্যস!

১৫, পরিবেশনের জন্য প্রস্তুত। কড়াই থেকে মাছ পাত্রে নিতে সাবধান, যেন ভেঙ্গে না যায়!

IMG_20160330_233317

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *