“রূপটানে শসার যাদু”…

Lime-Juice-Cucumber-Face-Packশসা ফল হিসাবে সুস্বাদু নয় কিন্তু খাদ্যগুনে পরিপূর্ণ।শসা শরীরের ভেতর ও বাইরে দুই জায়গার যত্ন নেয়।রূপচর্চায় শসার গুরুত্ব অপরিসীম।এই ফলটি বাজারে সারা বছর অঢেল পাওয়া যায় এবং দামেও সস্তা।আসুন আজ আমরা জেনে নেবো কিভাবে শসাকে রূপচর্চায় ব্যবহার করব।

অ্যাকনে- আলুর রসের সঙ্গে শসার রস,কয়েকটা নিমপাতার রস এবং সামান্য কাঁচা হলুদের রস মিশিয়ে লাগান।লাগানোর মিনিট কুড়ি পর ধুয়ে ফেলুন।ফলাফল কথা বলবে।

অ্যান্টি ট্যানিং- প্যাক হিসাবে শসার ব্যবহার দারুন উপকারি।২চামচ ওটস,২চামচ দই এবং ২চামচ শসার রস মিশিয়ে প্যাক তৈরি করে লাগান।সপ্তাহে ২থেকে ৩বার প্যাকটি লাগালে ত্বকের ট্যানিং দূর হবেই হবে সঙ্গে ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়বে।

চোখের তলায় কালচে ভাব- ২চামছ শসার রসের সঙ্গে ২চামছ আলুর রস মিশিয়ে একটি কাঁচের পাত্রে দিন।তুলো গোল করে কেটে ঐ রসে ডুবিয়ে চোখের ওপর ২০মিনিট রেখে দিন।দাগ আর থাকবে না।

অ্যান্টি রিংকলস মাস্ক- ২চামচ শসার রস,ডিমের সাদা অংশ ও বেসন দিয়ে প্যাক বানিয়ে লাগান।২০মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন।যদি কেউ ডিম লাগাতে না চান তাহলে ডিমের বদলে পাকা পেঁপে ঐ প্যাকের সঙ্গে মিশিয়ে নেবেন।

ইনস্ট্যান্ট গ্লো-কাজের চাপে সারাদিন সময় পাওয়া যায়নি কিন্তু অনুষ্ঠানে যোগ দিতে হবে।কি করবেন?ফ্রিজে মজুত টোম্যাটো আর শসা দুটোর রস মিশিয়ে মুখে লাগিয়ে নিন।৫-১০মিনিট রাখার পর ধুয়ে ফেলুন।ব্যাস,আয়নায় দেখুন ঝলমলে হয়ে উঠেছে ত্বক।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *