মঠ সম্পাদক ও দম্পতিরা।

m1500আমেরিকা থেকে অনেক সাহেব ভক্ত বাগিয়ে এক করিৎকর্মা গুরু কলকাতায় এসে একটা মঠ খুললেন। ছোঁড়া- ছুঁড়ি, বুড়ো-বুড়ি সকলেই ঐ মঠের সদস্য হচ্ছেন।একদিন সকালবেলা তিন দম্পতি মঠে গিয়েছেন সদস্য হওয়ার জন্য। প্রথম দম্পতি বেশ বয়স্ক, দ্বিতীয় দম্পতি মধ্যবয়স্ক ,তৃতীয় দম্পতি সদ্যবিবাহিত। মঠ সম্পাদক ঐ তিন দম্পতির সঙ্গে দেখা করে বললেন, আপনারা তিন সপ্তাহ বাদে এসে যোগাযোগ করুন। আর এই তিন সপ্তাহে আপনাদের চরম ব্রম্ভচর্য পালন করতে হবে।

তিন সপ্তাহ বাদে তিন দম্পতি আবার মঠে দেখা করতে এলেন। মঠ সম্পাদক তিন দম্পতিকে প্রশ্ন করলেন তাদের তিন সপ্তাহ কেমন কেটেছে।

উত্তরে বয়স্ক দম্পতি জানালেন , যেমন সাধারন কাটে, তাদের বিশেষ অসুবিধে হয়নি।

মধ্যবয়স্ক দম্পতি জানালেন- প্রথম কয়েকটা দিন একটু কষ্ট হয়েছে কিন্তু কয়েকদিন পর থেকে ওঁরা অবস্থাটা সামলে নিতে পেরেছেন।

সদ্যবিবাহিত দম্পতি জানালেন- সব কিছুই ঠিকঠাক চলছিল কিন্তু বইটা মাটিতে পড়তেই সব গোলমাল হয়ে গেল।

মঠ সম্পাদক অবাক হয়ে বলে উঠলেন- বই!!

আজ্ঞে হ্যা, বই। বুক সেলফ থেকে ও যখন দুহাত তুলে বইটা নামাচ্ছিল, তখনই আমার বুকের ভেতরটা কিরকম যেন করে উঠলো। তারপর হটাত ওঁর হাত ফস্কে বইটা মাটিতে পড়ে গেল। আর ও আমার সামনেই নিচু হয়ে বইটা তুলতে গেল …… তখন আর আমি নিজেকে সামলাতে পারলাম না। সেখানেই আমাদের শপথ ভঙ্গ হয়ে গেল।

মঠের সম্পাদক মাথা নেড়ে বললেন- ‘সবই তার লীলা’। যাইহোক, আপনারা নিশ্চয় আমার অসুবিধাটা বুঝতে পারছেন। এই মঠে আর আমি আপনাদের সদস্য করতে পারছি না।

না না, সেত বুঝতেই পারছি। ব্রিটিশ কাউন্সিলও বলেছে ওদের লাইব্রেরীতে আমাদের আর ঢুকতে দেবে না।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *