গ্রাফিক্স ডিজাইনের সাহায্যে কেরিয়ার গড়ে তুলুন।

Flat design vector illustration of modern creative office workspace workplace of a designer. The office of a creative worker. Flat minimalistic style and color with long shadows for Web & Mobile Appআপনার ছোটবেলা থেকে যদি আঁকা-আঁকিতে আগ্রহ থাকে তাহলে গ্রাফিক্স ডিজাইনিং আপনার পেষা হতে পারে।গ্রাফিক্স ডিজাইন পেষাটি উন্নত,নিরাপদ এবং ভালো রোজগার করা যায়।পেষাটির বাজার ক্রমবর্ধমান।এই পেষায় নিযুক্ত ব্যক্তিদের বাজারে চাহিদা আছে।একজন গ্রাফিক্স ডিজাইনের হাত লাগে না এমন কাজ নেই।প্রত্যেকটি কাজে গ্রাফিক্স ডিজাইনারের হাত প্রয়োজন।আসুন জেনে নি কোথায় কোথায় কাজের ক্ষেত্র।

ওয়েব ডিজাইনিং= একজন ডিজাইনারের বড় কাজের ক্ষেত্র হল ওয়েব ডিজাইনিং করা।একটি ওয়েবসাইটের সৌন্দর্য নির্ভর করে একজন ওয়েব ডিজাইনারের ওপর।এই মার্কেটস্পেস দিনে দিনে দেশে বিদেশে প্রসারিত হচ্ছে।

ব্র্যান্ড ডিজাইনিং= একটি ব্র্যান্ডের কাজের জন্য যত ডিজাইন প্রয়োজন হয় তার সবটাই তৈরি করেন একজন গ্রাফিক্স ডিজাইনার।এবার আন্দাজ করুন একটি কোম্পানিতে কত রকম ব্র্যান্ড থাকতে পারে,তার সবটাই তৈরি করেন একজন ডিজাইনার।

মার্কেটিং ব্রাউজার= প্রতিটি প্রতিষ্ঠান তাদের প্রোডাক্ট ক্রেতাদের আকর্ষণ করার জন্য মার্কেটিং ব্রাউজার তৈরি করান এবং এটি তৈরি করেন একজন গ্রাফিক্স ডিজাইনার।কোম্পানিগুলি ব্রাউজার বানানোর ক্ষেত্রে দেদার খরচা করে থাকে।

ম্যাগাজিন= আজকাল ম্যাগাজিনের বাজার প্রসারিত হচ্ছে।ওয়েব এবং ছাপা দু ক্ষেত্রেই।একটি ম্যাগাজিনকে পাঠকদের কাছে সুন্দর করে তুলে ধরতে প্রয়োজন সুন্দর ডিজাইনিং।এই কাজটি একমাত্র গ্রাফিক্স ডিজাইনার করতে পারে।

লোগো ডিজাইনিং= একটি লোগো একটি প্রতিষ্ঠানের পরিচয় বহন করে।ঐ লোগোকে দেখে কোম্পানিটিকে চেনা যায়।মাঝে মাঝে কোম্পানিগুলি তাদের লোগোকে পরিবর্তন করে থাকে এবং এর পেছনে প্রচুর অর্থ ব্যায় করে।সমগ্র কাজটি একজন গ্রাফিক্স ডিজাইনার করে থাকে।অনুমান করুন প্রতিদিন নতুন নতুন কোম্পানি গঠন হচ্ছে আর তাদের লোগো বানানোর কাজে গ্রাফিক্স ডিজাইনারের প্রয়োজন।বাজারটা কত বড় ভাবুন।

Advertising Online and in Traditional Media Methods

সংবাদপত্র= আগের সংবাদপত্র ভুলে যান।এখনকার সংবাদপত্র দেখলেই নজরে পড়বে গ্রাফিক্স ডিজাইনের ছড়াছড়ি।বর্তমানে সংবাদপত্র গাফিক্স ডিজাইনিং ছাড়া ভাবাই যায় না আর অন্য সংবাদপত্রের সঙ্গে লড়ে বাজারে টিকতে হলে গ্রাফিক্স ডিজাইনিংকে প্রাধান্য দিতেই হবে।

গ্রাফিক্স ডিজাইনার হতে কি শিক্ষার প্রয়োজন= ইংরাজি জানাটা কাজের ক্ষেত্রে বাড়তি সুবিধা যোগায় কারন বাইরের ব্যায়ারের সঙ্গে কথাবার্তা চালাতে সহায়ক হয়।কোন ইণস্টিটিউট থেকে ডিপ্লোমা এবং ফাইন আর্টসে ব্যাচিলার ডিগ্রী করলেই চলবে।বাকিটা আপনার সৃজনশীলতা।এইটি ঠিকঠাক থাকে আপনার নাগাল পায় কে।

হতে পারেন ডিজাইনিং উদ্যোক্তা= আপনি নিজের তৈরি ডিজাইন বিক্রি করতে পারেন।আপনার ডিজাইন কেনার জন্য বহু সাইট আছে যেখানে ভিজিট করলে আপনি ক্রেতা পেয়ে যাবেন।বিষদে জানতে ওডেস্ক,৯৯ ডিজাইন ইত্যাদি সাইট ভিজিট করতে পারেন।এইধরনের আরও সাইট আছে সেগুলিতেও যেতে পারেন।

মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন ডিজাইন= ক্রমশ যে ভাবে মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন বাড়ছে তাতে করে অদূর ভবিষ্যতে মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন বেড়ে দাঁড়াবে ১০০ বিলিয়ন।আর এই অ্যাপ্লিকেশনের ডিজাইন নিশ্চয় বাইরের কেউ করবে না অবশ্যই একজন গ্রাফিক্স ডিজাইনারই করবে।এবার ভাবুন কোথায় গিয়ে দাঁড়াচ্ছে পেষাটি।

গ্রাফিক্স ডিজাইনারের রোজগার= একজন সাধারন ডিজাইনারের মাষে রোজগার হতে পারে ২০ থেকে ৩০ হাজার।ফাইন আর্টসে ব্যাচিলার ডিগ্রী থাকলে রোজগার একলাফে বেড়ে দাঁড়াবে ৪০ হাজার থেকে ১.৫০ লাখ টাকা।

** পেষাগত সন্মান ও টাকা দুটিই আছে এই পেষায়।    

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *