পশ্চিমবাংলায় ৩৫৬ ধারা দাবি করলেন- অধীর চৌধুরী।

2018_8$LargePhoto24_Aug_2018_24082018203711৩রা ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যা থেকেই কলকাতা তথা সমগ্র বাংলা উত্তাল। বিগত বেশ কয়েকবার কলকাতা পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমারকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সিবিআই’র পক্ষ থেকে তলব দেওয়া সত্ত্বেও তিনি সাড়া দিচ্ছিলেন না। একরকম বাধ্য হয়ে সিবিআই আধিকারিকরা কলকাতা পুলিশ কমিশনারের বাড়িতে হানা দেয়।

সিবিআই কর্তৃক হানাকে প্রতিহত করার জন্য স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রী পুলিশ কমিশনারের বাড়ি পৌঁছে যান। কলকাতা পুলিসের দুটি বিশাল বাহিনী, একটি  গিয়ে কমিশনারের বাড়ির সামনে থেকে কর্তব্যরত সিবিআই আধিকারিকদের ধ্বস্তাধস্তি করে তুলে নিয়ে এসে প্রথমে পার্ক স্ট্রীট পরে সেক্সপিয়ার সরনি থানায় আটক করে রাখে। আরেক বাহিনী সল্ট লেকের সিজিও কমপ্লেক্সে সিবিআই দফতরকে ঘিরে ফেলে।

এই ঘটনার পরিপেক্ষিতে সাংসদ অধীর চৌধুরী তার প্রতিক্রিয়ায় জানান– পশ্চিমবাংলায় অবিলম্বে ৩৫৬ ধারা লাগু করার দরকার। চিট ফান্ড কেলেঙ্কারিতে বাংলার শাসক দল সম্পূর্ণরূপে ফেঁসে গেছে। এটা আমি জানি তাই দায়িত্ব নিয়ে বলছি।

কংগ্রেস পার্টির আবেদনে চিট ফান্ড কেলেঙ্কারির তদন্ত সুপ্রিম কোর্টের নজরদারিতে শুরু হয়েছে। তদন্তের ফাঁস যত শক্ত হচ্ছে, মমতা ততই ঘাবড়ে যাচ্ছেন।

বিগত পঞ্চায়েত নির্বাচনে বাংলায় সীমাহীন সন্ত্রাস চালিয়ে জয় হাসিল করেছিল। ৮৭ জন মানুষের প্রান গিয়েছিল ওই নির্বাচনে, তখন তো দিদি ধরনায় বসেন নি??

এখন ভয় পেয়ে বাকি দলেদের কাছে সমর্থন চাইছেন, পা ধরছেন।

অমিত শা এবং নরেন্দ্র মোদীরা তাদের বিরোধীদের বিরুদ্ধে সিবিআই’কে লেলিয়ে দিচ্ছেন, এটা সত্য কিন্তু বাংলায় তো সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে তদন্ত হচ্ছে।

মমতার ধরনা মঞ্চে পুলিশ কমিশনার উপস্থিত কেন?

আমার দলের হাইকমান্ড কি বলছে তা আমি জানি না কিন্তু এটাই আমার মত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *