“ঈদ’ সকল হিংসা, বিদ্বেষ ও অহংকারকে মুছিয়ে দেওয়ার উৎসব”

Eid-Indiaফিচার টেবিলঃ “ও মন রমযানের ঐ রোজার শেষে এল খুশীর ঈদ, তুই আপনাকে আজ বিলিয়ে দে শোন্ আসমানী তাকিদ” কবিতার লাইন কটি বিদ্রোহী কবি নজরুল ইসলামের লেখা পবিত্র ইদ সম্পর্কে। ঈদ মানে আনন্দ, ঈদ মানে খুশি।ঈদের  অর্থ হল এমন খুশীর উৎসব যা বারবার ফিরে আসে। তাই প্রতি বছরই মুসলমানদের জীবনের ফিরে আসে খুশির ঈদ।ঈদের উৎসব ধর্ম বর্ন নির্বিশেষে দুনিয়াজুড়ে পালন করা হয়ে থাকে। প্রথম ইদ’টি পালিত হয় দীর্ঘ এক মাস সিয়াম সাধনার পর। যাকে আমরা  ঈদুল ফিতর বলি বা রোজার ঈদ আর অন্যটি আত্মত্যাগের কোরবানির ঈদ বা ঈদুল আজহা।এই দুটি ঈদই হলো মুসলমানদের প্রধান ধর্মীয় উৎসব।পশ্চিম আকাশে পবিত্র  চাঁদ দেখার সাথে সাথে  সকলের মাঝে আনন্দের বন্যা  বইতে শুরু করে। ঈদের রাতকে চাঁদ রাত বলা হয়।

শুধু রাত পোহানোর অপেক্ষা। সকাল হতেই শুরু হয়ে যায় খুশীর বন্যা। রাজপ্রাসাদ থেকে কুঁড়েঘর পর্যন্ত।  কোলাকুলি আর ফিরনী- সেমাই খাওয়ার ধুম পড়ে যায়।শুরু হয় বন্ধু বান্ধব ও আত্মীয় স্বজনদের মধ্যে কুশলবিনিময় ও বিভিন্ন উপহারসামগ্রী বিতরণ। পবিত্র ঈদ  ভ্রাতৃত্বের বন্ধন এবং সম্প্রীতি বৃদ্ধির প্রতিক।এই উৎসব ধনী ও দরিদ্রের  ভেদাভেদ ভুলিয়ে দিয়ে সকলকে একলাইনে সামিল করে।  ঈদ সকল হিংসা, বিদ্বেষ ও অহংকারকে  মুছিয়ে দিয়ে নতুন করে সুখী পবিত্র জীবন যাপন শুরু করার শিক্ষা প্রদান করে।

একবিংশ’র পক্ষ থেকে সকলকে পবিত্র ঈদের শুভেচ্ছা জানাই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *