“আজ সাহিত্য সম্রাট বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের জন্মদিন”

Bankimchandra_Chattapadhay

ফিচার টেবিলঃ আজ ২৬ জুন সাহিত্য সম্রাট বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের জন্মদিন। ১৮৩৮ সালের ২৬ জুন বর্তমান উত্তর ২৪ পরগনা জেলার নৈহাটি শহরে কাঁঠালপাড়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। উনিশ শতকের বাঙালি সাহিত্যিক ও সাংবাদিক বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় বাংলা সাহিত্য বিকাশে অসীম অবদানের জন্য অমর হয়ে থাকবেন।তিনিই প্রথম আধুনিক বাংলা ঔপন্যাসিক। বাংলা ভাষার আদি সাহিত্যপত্র বঙ্গদর্শনের প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক ছিলেন।কমলাকান্ত  ছদ্মনামেও লিখতেন।১৮৫৮ সালে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম ব্যাচের যে দুজন ছাত্র বিএ পাস করেন, বঙ্কিমচন্দ্র ছিলেন তাদেরই একজন। তিনি ব্রিটিশ সরকারের -সাব অর্ডিনেট এক্সিকিউটিভ সার্ভিসে যোগ দেন এবং পরে ডেপুটি ম্যাজিস্ট্রেট ও ডেপুটি কালেক্টর পদে চাকরি করেন।বঙ্কিমচন্দ্রের কর্মদক্ষতার স্বীকৃতিস্বরূপ কর্তৃপক্ষ তাকে ১৮৯১ সালে ‘রায়বাহাদুর’ এবং ১৮৯৪ সালে ‘Companion of the Most Eminent Order of the Indian Empire’ (CMEOIE) উপাধি প্রদান করে।মফস্বলে চাকরির সময়ে  বঙ্কিমচন্দ্র বাংলার আসল অবস্থা উপলব্ধি করেন। সাধারন মানুষের সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগ থেকে তিনি খুঁজে নিতেন তার উপন্যাসের চরিত্র।বিদেশি সাহিত্য নিয়ে তার গভীর পড়াশোনার ছায়া খুঁজে পাওয়া উপন্যাসের চরিত্র নির্মাণ ও কাহিনী বর্ণনায়।
২৪ পরগনা জেলার বারুইপুরে ডেপুটি ম্যাজিস্ট্রেট থাকা অবস্থায় বঙ্কিমচন্দ্র তার প্রথম দুটি বিখ্যাত উপন্যাস দুর্গেশনন্দিনী ও কপালকুণ্ডলা রচনা করেন।  ১৮৮৭ সালের মধ্যে তার অন্যান্য  মোট চৌদ্দটি উপন্যাস প্রকাশিত হয়। ১৮৮০ থেকে বঙ্কিমচন্দ্রের রাজনীতি ও ধর্মের প্রতি অনুরাগ জন্মাতে থাকে। বঙ্কিমচন্দ্রের আগে বাংলা উপন্যাস বলতে  ছিল কয়েকটা সংস্কৃত নাটক ও গল্প এবং কিছু ফারসি ও আরবি গল্পের অনুবাদ।বঙ্কিমচন্দ্র ভারতীয় জাতীয়তাবাদ জাগিয়ে তুলতে প্রবন্ধ ও গ্রন্থে ‘বন্দে মাতরম্’, ‘মাতৃভূমি’, ‘জন্মভূমি’, ‘স্বরাজ’, ‘মন্ত্র’ প্রভৃতি নতুন স্লোগান তৈরি করেন। ১৮৯৪ সালের ৮ এপ্রিল তিনি মৃত্যুবরণ করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *